Posts

Showing posts from April, 2016

সেনাবাহিনীর এভিয়েশন কোরে দুই নারী পাইলট - বাংলাদেশের তরুণীদের অনুপ্রেরণা

Image
বাংলাদেশের ইতিহাসে ২০১৫ সাল থেকেই জায়গা করে নিয়েছে যে দুইটি নারীর নাম তারা হলেন ক্যাপ্টেন নাজিয়া নুসরাত হোসেন এবং ক্যাপ্টেন শাহরিনা বিনতে আনোয়ার ।

 প্রথমবারের মতো আর্মি এভিয়েশনে যুক্ত হতে কঠোর পরীক্ষা পার করে ২০১৪ সালের ১৬ নভেম্বর প্রশিক্ষণ শুরু করেন ক্যাপ্টেন নাজিয়া নুসরাত হোসেন এবং ক্যাপ্টেন শাহরিনা বিনতে আনোয়ার।

ক্যাপ্টেন নাজিয়া নুসরাত এর স্বামি মেজর স্বামী মেজর মাহমুদ এবং শাহরিনা বিনতে আনোয়ার এর স্বামি বিমান বাহিনীর ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট খালিদ তাদের এই যাত্রায় সার্বিক ভাবে উৎসাহ এবং সহযোগিতা করে গেছেন । এই দুই কাপল রা বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর এক যুগান্তকারী অধ্যায় হয়ে থাকবে


For the first time ever in the history of Bangladesh Army, two female probationer pilots successfully managed their single and dual flight in the army aviation group in the capital Dhaka .



ক্যাপ্টেন নাজিয়া নুসরাত হোসেন ও ক্যাপ্টেন শাহরিনা বিনতে আনোয়ার ২০০৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর ৬১তম বিএমএ দীর্ঘমেয়াদী কোর্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরে কমিশন লাভ করেন। কোরের সকল আবশ্যিক কোর্স শেষ করে ২০১৪ সালের ১৬ নভেম…

র‍্যাবের মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ।April 2016

Image
বাংলাদেশের ইতিহাসে আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে এক গৌরব উজ্জ্বল প্রতীকের নাম র‍্যাপিড একশন ব্যাটালিয়ন ( র‍্যাব ) । বিগত অনেক গুলো বৎসর পেড়িয়ে আজো দিনের শেষে সাধারন জনগনের ভরসার শেষ নাম তড়াই ।

শুরু থেকেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লেফটেনেন্ট কর্নেল পদমর্যাদার অফিসার রা ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক হিসাবে র‍্যাবের সবগুলো ইউনিটে সারদেশে দায়িত্ব পালন করে আসছেন । যার ফলে এলিট এ বাহিনীতে রয়েছে শৃঙ্খলা ও ন্যায়ের প্রতিচ্ছবি ।







সাম্রতিক দেশে নেশাদ্রব্যের চরম সহজলভ্যতা শুরু হোলে র‍্যাব সকল প্রকার মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে । বিগত এক বৎসরে র‍্যাবের হাতে গোনা কিছু বিপিথ গামী সদস্যদের কারনে র‍্যাব ইমেজ সঙ্কটে পড়লেও র‍্যাব অচিরেই তার হারানো গৌরব ফিরে পেয়েছে । দেশের তরুন সমাজ কে ভয়াভয় ইয়াবা ও সকল মাদকের র হাত থেকে রক্ষা করতে র‍্যাবের বিভিন্ন অভিযানে ভেঙ্গে পড়েছে মাদক চক্র দের হাত । এতে সকল সন্ত্রাসী ও ত্রাশ সৃষ্টিকারীরা আছে আতঙ্কে । মাদকের সম্পূর্ণ চক্রটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে । মাদক দ্রব্যের ব্যাবসাই অপরাধীদের আয়ের একমাত্র প্রধান উৎস ।




২০১৬ সুরু থেকেই র‍্যাবের অভিযানে ব্যাপক পরিমান…

আর মাত্র দুই দিন । সিম রেজিস্ট্রেশন করুন তা না হলে সিম বন্ধ

Image
আর দুই দিনের ৩০ এপ্রিল মধ্যেই সকল রেজিস্ট্রেশন ছাড়া মোবাইল সিম বন্ধ হয়ে যাবে কোন নোটিস  ছাড়াই । অনেকেই বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে মিথ্যা ভিত্তিহিন প্রোপাগান্ডা ছড়ালেও এর কোন বাস্তবিক ভিত্তি নেই ।




তাই যারা এখন সিম রেজিস্ট্রেশন করেন নি দ্রুত সিম রেজিস্ট্রেশন করুন আপনার আসে পাশের ফ্লেক্সিলোডের দোকান থেকে  এবং  সবার সাথে কানেক্টেড থাকুন ।

বাংলাদেশি মুসলমানের বানানো জন্মদিনের কেকে কাটলেন ব্রিটেনের রানী

Image
Image copyrightAFPImage captionরানির সামনে নাদিয়া হোসেন এবং তার বানানো জন্মদিনের কেক যুক্তরাজ্যে এবার রানি এলিজাবেথের ৯০তম জন্মদিনের আনুষ্ঠানিক কেকটি বানিয়েছেন ব্রিটিশ-বাংলাদেশী নাদিয়া হোসেন। গতকাল নানা অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে জন্মদিন পালনের পর আজ সেই কেকের ছবি ব্রিটেনের বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ছাপা হয়েছে। বেশ অন্যধরনের দেখতে কেকটি, দেখে মনে হবে যেন তিনটি সোনালী, বেগুনী এবং ডোরাকাটা কেক - একটি আরেকটির ওপর বসানো। নাদিয়া নিজেই বলেছেন, তিনি সনাতনী ডিজাইনের তুলনায় সম্পূর্ণ অন্যরকম চেহারার একটি কেক বানাতে চেয়েছিলেন, এবং এই আইডিয়াটা তার মাথায় হঠাৎ করেই এসেছে। কেকটা দেখে রানি এলিজাবেথ নাদিয়াকে প্রশ্ন করেছিলেন, এর ভেতরে কি আছে? নাদিয়া উত্তর দেন, "অরেঞ্জ ড্রিজল।" রানি তখন আবার প্রশ্ন করেন - "এটা কি কাটা যাবে?" Image copyrightbbcImage captionনাদিয়া হোসেন নাদিয়া বললেন " আমি বুঝলাম তিনি হয়তো ভয় পাচ্ছেন যে কেকটা কাটা যাবে না, অথবা তার এমন কোন কেকের পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে যা কাটা যায় নি।" "কিন্তু আমার তেমন কোন দুর্ভাবনা ছিল না। বললাম, হ্যাঁ এটা কাটা যাবে। …

'প্রধানমন্ত্রী হতে দেরি নেই' - ইমরান খান

Image
Image copyrightAFPImage captionইমরান খান
পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার এবং রাজনীতিক ইমরান খান বলেছেন, তার দল তেহরিক ই ইনসাফ দেশের ক্ষমতা নেওয়ার জন্য প্রস্তুত। তার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কি -- বিবিসির এই প্রশ্নে তিনি অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথে বলেন, "এই প্রথম দল ক্ষমতা গ্রহণের জন্য পরিপক্ক এবং প্রস্তুত, কারণ আমার দল যে ধরণের সংগ্রামের ভেতর দিয়ে গেছে, পাকিস্তানে তার নজির নেই। তিনি বলেন, তার ধারণা "অপেক্ষার পালা শেষ হচ্ছে"। তথাকথিত পানামা পেপারসে'র প্রসঙ্গ তুলে ইমরান খান বলেন, প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শরিফের পদত্যাগ দাবি করেন। তিনি বলেন, পানামা পেপারসে স্পষ্ট হয়ে গেছে মি শরিফের পরিবার বিদেশে টাকা পাচার করে কোম্পানি খুলেছে। ইমরান খান বলেন, তিনি তার সম্পদের হিসাব দিয়েছেন। "তিনি (প্রধানমন্ত্রী শরিফ) কেন তার সম্পদের হিসাব দিচ্ছেন না ? যদি না দেন , তাহলে সুপ্রিম কোর্টের উচিৎ তার সম্পদের তদন্ত করা"। পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি পত্রিকায় খবর বেরিয়েছে, পানামা-ভিত্তিক একটি আইনজীবী সংস্থা থেকে ফাঁস হওয়া নথিপত্রে বিদেশে বেশ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাথে প্রধানমন্ত্রী শরিফের দুই ছেল…

জার্মানিতে ইসলাম-বিরোধী রাজনীতিক কাঠগড়ায়

Image
Image copyrightJohannes Simon GettyImage captionমিউনিখে পেগিডার একটি অভিবাসন বিরোধী মিছিল জার্মানিতে বর্ণবাদি ঘৃণা উস্কে দেবার অভিযোগে ইসলাম ও অভিবাসন-বিরোধী সংগঠন পেগিডার নেতা লুতজ বাখমানের বিচার শুরু হয়েছে। ২০১৪ সালে ফেসবুকে তিনি সিরিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া ও আফ্রিকা থেকে আসা শরণার্থীদের গরুছাগল এবং আবর্জনা বলে বর্ণনা করে যে মন্তব্য করেছিলেন তার জন্যই তিনি অভিযুক্ত হয়েছেন। আদালত বলেছে, ওই মন্তব্যে আশ্রয়প্রার্থীদের মর্যাদার ওপর আঘাত করা হয়েছে। সরকারি কৌঁসুলি লরেন্স হাসে বলছেন, মি. বাখমানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। মি বাখমান অবশ্য এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলছেন, এর সবটাই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য-প্রণোদিত। ৪৩ বছর বয়সী লুৎস বাখমান পেগিডা আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা। ২০১৪ সালে জন্মের পর থেকেই সংগঠনটি জার্মানির বিভিন্ন শহরে ইসলাম ও শরণার্থী-বিরোধী সভা সমাবেশের আয়োজন করেছে যাতে অংশ নিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। সবচেয়ে বড় সমাবেশটি হয়েছিলো কোলনে, ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনের সময় নারীদের ওপর যৌন হামলার অভিযোগ ওঠার পর। পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে গত বছর জার্ম…

ইমরান এইচ সরকারকারের হাল চাল

Image
শাহবাগ আন্দোলনকারীদের ‘নাস্তিক’ আখ্যায়িত করে গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছিল হেফাজতে ইসলামের পক্ষে অবস্থান নেওয়া বিএনপি। শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে ইমরানের এক স্ট্যাটাস নিয়ে তিন বছর পর এখন উল্টে গেছে চিত্র। ইমরানকে ‘সুবিধাবাদী’ আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্ট্যাটাসের পর এখন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রের সমালোচনায় মুখর আওয়ামী লীগ সমর্থকরা। বিপরীতে গণজাগরণবিরোধী এবং বিএনপি সমর্থকদের মধ্য থেকে এখন দেখা যাচ্ছে ইমরানের পক্ষে দাঁড়াতে। হেফাজতের পক্ষে দাঁড়িয়ে গণজাগরণ আন্দোলনের বিরোধিতাকারী ফরহাদ মজহারও তার পক্ষে লিখেছেন। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার পাশে থাকা হেফাজত নেতারা এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইসলামের পক্ষে ‘জোরাল অবস্থানের’ প্রশংসা করছেন। শেখ হাসিনার প্রশংসা করছেন গণজাগরণবিরোধী হেফাজতের আমির শাহ আহমদ শফীও। রংপুর মেডিকেল কলেজের ছাত্রলীগ নেতা ইমরান ২০১৩ সালে ব্লগার অ্যান্ড অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট নেটওয়ার্কের আহ্বায়ক হিসেবে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্রের দায়িত্বে আসেন। যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ঝড়তোলা আন্দোলনের কারণে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে সারাদেশেই …

তনুর মৃত্যু 'পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড'- সিআইডি

Image
বাংলাদেশে কুমিল্লার কলেজ ছাত্রী সোহাগী জাহান তনুর রহস্যজনক মৃত্যুর একমাস পর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের এক কর্মকর্তা এই মৃত্যুকে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে বর্ণনা করেছেন। কুমিল্লা সেনানিবাসের মধ্যে যে জায়গার তনুর মৃতদেহ পাওয়া যায়, সে জায়গা ঘুরে এসে সিআইডি তদন্ত দলের কর্মকর্তা নাজমুল করিম খান সাংবাদিকদের বলেন, এখন পর্যন্ত তদন্তে তাদের মনে হচ্ছে তনুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়। মি খান বলেন, তাদের ধারণা তনুর মৃতদেহ যেখানে পাওয়া গিয়েছিলো সেখানে তাকে হত্যা করা হয়নি। তিনি বলেন, অন্য জায়গায় হত্যা করে মৃতদেহ সেখানে ফেলা যাওয়া হয়। সিআইডি ঐ কর্মকর্তা বলেন, তনুর প্রথম ময়না তদন্তের রিপোর্টে তারা সুনির্দিষ্ট কোনো দিক নির্দেশনা পাননি - দ্বিতীয় রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছেন তারা। কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকায় যেখান থেকে সোহাগী জাহান তনুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল, সিআইডি দল সেই এলাকা ঘুরে দেখার পাশাপাশি বিভিন্ন লোকজনের সাথে কথা বলেছে। কুমিল্লা সেনানিবাসে বসবাসকারী তনুর পরিবারের সাথে পরিচিতদের সাথেও কথা বলেছে সিআইডি। এই তদন্ত দলের প্রধান এবং সিআইডি’র সিনিয়র কর্মকর্তা আব্দুল কাহার আকন্দ বিব…

Bangladesh Defence Power

Image
একটি দেশের সম্পূর্ণ সামরিক শক্তি কখনই প্রকাশ করা হয় না । এমনকি তা বাংলাদেশের জন্যেও প্রোজেজ্য । বাংলাদেশ সামরিক বাহিনির মত  গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাস পৃথিবীর অনেক সামরিক বাহিনীর নেই । এটি এমন একটি সামরিক বাহিনী যা অন্যায়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার মাধ্যমে শুরু হয়েছে ২৫ মার্চের সেই কালো রাতের পড় থেকেই । একটি পাশবিক গনহত্যা এবং তার প্রতিরোধ থেকেই শুরু আমাদের সামরিক বাহিনীর পথচলা । বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর দক্ষতা এবং মিলিটারি স্ট্রেটেজির কারনে জাতিসংঘের সবচেয়ে বড় শান্তি রক্ষা মিশনে তাদের ডাকা হয় । হয়ত আমাদের নেই পারমানবিক শক্তি কিংবা অত্যাধুনিক অস্ত্র শস্ত্র নেই , কিন্তু চেতনায় অনুপ্রাণিত এই সামরিক বাহিনীর সাথে কোন দাদাগিরি করার চরম মাশুল দিতে হবে যে কোন পরাশক্তিকে । কারন বাংলাদেশ কে গত হাজার বৎসরে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারেনি , পারবেওনা  । ওয়ার্ল্ড মিলিটারি রাঙ্কিং এ বাংলাদেশ ৫৩ তম স্থানে আছে । কিন্তু চেতনায় আছে তারা শীর্ষে

রেফারেন্স- globalfirepower.com
আমাদের প্রতিবেশি দেশ , ধরে নেওয়া যাক ভারত যদি আমাদের আক্রমন করে ।
তাহলে আমাদের প্রতিরক্ষা ব্যাবস্থা কি রকম আমরা কি আসলেই কোন প্রতিরোধ করতে পারব ? ক…